ফটোগ্রাফি কম্পোজিশন : Less is more।সাইদ সুমন।

(প্রকৃতিতে ছন্দ বিদ্যমান, এবং গতিময়, ফটোগ্রাফি এই রিদম কে বজায় রেখে গতি কে থামিয়ে একটা ইমেজ তুলে নিয়ে আসেন। ফটোগ্রাফার তার ইউনিক সেপ্স  sense  দিয়ে প্রকৃতিকে দেখেন, এবং ইমেজ construct করার চেষ্টা করেন, এই construction কে ফটোগ্রাফি কম্পোজিশন বলা যেতে পারে। )

স্টিল ফটোগ্রাফি স্থির হলেও তার মধ্যে আমরা গতি দেখতে পাই, বা আমরা কল্পনা করে নেই, , স্টিল ফটোগ্রাফি ‘ফ্রাক্সন অফ সেকেন্ড’ এর মাধ্যমে একটা ফ্রেম তুলে নিয়ে আসেন সেপ্স(space) থেকে, যেখানে ফটোগ্রাফার পছন্দ মতো এঙ্গেল, পজিসন এবং মুভমেন্ট বাছাই করেন। এবং ফটোগ্রাফার যখন একটা ফ্রেম কে বাছাই করেন ইমেজের জন্য তখন সে অনেক কিছু বাদ দেয়, এবং এই বিয়োগ করার মধ্যে দিয়ে একটা ইমেজ তৈরি হয়, ফটোগ্রাফার তার চোখে যা দেখেন লেন্স ও তাই দেখে, সেখানে ফটোগ্রাফার যদি স্টেজ না করে তাহলে তার স্থানে যোগ করার কিছু নাই, বরঞ্চ তিনি এঙ্গেল, ফোকাল লেন্থ, এবং আরও বিভিন্ন টেকনিক দিয়ে ছবি কে তার আকাঙ্ক্ষিত রুপ দেয়।

এবং, একটা ইমেজে যখন আমরা অনেক গুলো গাড়ি দেখি তখন আমরা তার গতির কল্পনা করে নেই, তেমনি যখন কোন স্থবির কিছু দেখি তারও স্থবিরতা আমরা জেনে নেই, ইমেজের ইনফরমেশন আমাদের পরিচালিত করে, এই ক্ষেত্রে ফটোগ্রাফার ঠিক করেন কতটুকু স্পেস সে নিবেন এবং কি কি বিষয় তিনি তার ছবিতে রাখবেন, কারন প্রত্যেকটা বিষয় আমাদের মধ্যে দ্যোতনা সৃষ্টি করে। প্রত্যেকটি বিষয়ের আলাদা আলাদা অর্থ থাকার কারনেই আমাদের মন দ্যোতনা তৈরি করে। 

এক্ষেত্রে সাজেশন হচ্ছে মাস্টার ফটোগ্রাফার দের ইতিহাস থেকে’ less is more’ মানে কম’ই বেশি, এই স্লোগান কে মেনে চলা, ফটোগ্রাফি কম্পোজিশনে অনেক বিষয় কে অন্তর্ভুক্ত করা যে ‘রিস্কি’ কাজ সে কথাই বলা হয়েছে। কম’ই বেশী এই কথা দিয়ে কম্পোজিশনের সহজীকরনের কথা বলা হয়েছে, সহজ ভাবে কম্পোজিশন আর্টিস্ট এর জন্য চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়ায় যদি আর্টিস্ট নিজে সহজ ভাবে ভাবতে না পারে।

ছবির  এলিমেনট বা উপাদান ভিউয়ার কে নির্দেশ করে ছবিকে কিভাবে পাঠ করতে হবে, সেক্ষেত্রে ছবিতে কি এবং কেমন উপাদান থাকবে তার উপর নির্ভর করবে ভিউয়ার কোনদিকে চোখ দিবে, সেক্ষেত্রে একটা ছবিতে ‘হাইলাইট’ বিষয় যত কম থাকবে, ভিউয়ার তত ফটোগ্রাফার এর কেন্দ্রীয় বক্তব্যকে বুঝতে সুবিধা হয়, আর একটা ছবিতে যখন অনেক গুলো বিষয় থাকে, তখন সেই বিষয়গুলোর মধ্যে যদি ফটোগ্রাফার ‘ইনার হারমনি’ বজায় রাখতে না পারে তাহলে ছবিটি তার গভীরতা হারিয়ে অস্পষ্ট হতে পারে এবং তাই হয়। এখানে ইনার হারমনি বজায় রাখার কথা বলা হয়েছে।

যেমন কারো ছবির সেন্টার অফ ইন্টারেস্ট যদি হয় সাদা কিছু এবং তাকেই যদি সে গুরুত্ব দিতে চায় তাহলে সে হয়ত তার স্পেস এর হলুদ কে বাদ দিবে, বা অহেতুক লাইন কে বাদ দিবে বা বিয়োগ করবে। এখানে ফটোগ্রাফার এর কমনসেন্স গুরুত্বপূর্ণ, এবং লোভ সংবরণ গুরুত্বপূর্ণ, সংবরণ এর প্রশ্ন আসছে কারন একটা সেপ্সে ও তার আশে পাশে অনেক ধরনের বিষয় থাকে, অনেক রঙ থাকে যেখান থেকে ফটোগ্রাফার অনেক কিছুর প্রতি আকৃষ্ট হতে পারে, এবং অনেক কিছুর মধ্যে তিনি তার কম্পোজিশন হারাতে পারেন।

তার মানে কখনও এই নয় যে একটা ছবিতে অনেক বিষয় পরিত্যাজ্য, একটা ছবিতে অনেক গুলো layer  থাকতে পারে, কিন্তু সব বিষয়ের মধ্যে ইনার হারমণী’ না থাকলে ছবি না হয়ে noisy ফ্রেম হতে পারে, আবার একটা ছবি লেস ইজ মোর এর চর্চা অব্যাহত রেখে সহজে পার পাওয়ার চেষ্টা করতে পারে, একটা ভালো ছবি যেটা collective consciousness  এ কার্যকর ভাইব্রেশন তৈরি করার ক্ষমতা রাখে।

জোসেফ কুদেল্কার এর ছবি সব সময় অনেক ক্লিন অনেক সংযমী, এই ছবিতে শুধু হাত, শরীরের অন্য কিছু না থাকলেও , এটাকেই ইউনিক লাগে।

এবং আমরা যদি মাস্টার ফটোগ্রাফার’দের ফটোগ্রাফি কম্পোজিশন খেয়াল করি তাহলে দেখতে পাবো, সবাই কম আর বেশি Less is more এর চর্চাকে তাদের ফিলসফির মধ্যে রেখেছেন, আবার যদি এলেক্স ওয়েব বা ডেভিড এল্যান হারভির মতো ফটোগ্রাফার কে বিবেচনা করি তাহলে দেখতে পাই, তারা একটা ছবিতে অনেক গুলো উপাদান কে ম্যেনেজ করেছেন। এবং লেস ইজ মোর মানে void space ও নয়, এর মানে সব সময় নয়েজ কে এড়িয়ে বা বিয়োগ করে রিদমে নিয়ে আসা।   

ফটোগ্রাফি কম্পোজিশন : Less is more।সাইদ সুমন।

*Less is more শুধু ফটোগ্রাফির একটি রুলস নয় এটি আর্টের সর্ব ক্ষেত্রের একটি এস্থেটিকস ফর্মুলা, যার চূড়ান্ত উধাহরন হতে পারে minimalist movement যেখানে সম্পূর্ণ ভাবে লেস ইজ মোর এর চর্চা করা হয়। পেইন্টিং এর ক্ষেত্রে লেস ইজ মোর এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ মার্ক রথকোর পেইন্টিং। 

*ফটোগ্রাফির লেস ইজ মোর পেইন্টিং এর মতো স্বাধীন মতো আঁকার উপায় না থাকলেও ফটোগ্রাফার এর থাকে স্পেস থেকে উপাদান কে বিয়োগ করার স্বাধীনতা, এর মধ্যে দিয়েই ফটোগ্রাফার মিনিমাল, সহজ উপস্থাপন এর মধ্যে দিয়ে সহজ কম্পোজিশনে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here